মো.মাইনুল ইসলামঃ

সাভার বিরুলিয়া ইউনিয়নের আক্রান বউ বাজার এলাকা থেকে ১৪ বছরের দুই কিশোরী অপহরণ হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন অপহ্নতদের মা-বাবা। ঘটনা সূত্রে জানাযায়, রয়তুন আক্তার,পিতা-আজমত আলী ও টুনি আক্তার,পিতা-রমজান আলী তারা স্থানীয় গ্লোবাল ফ‍্যাশন লিঃ নামে একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতো। তাদের উভয়ের বয়স (১৪)।আক্রান বউ বাজার আব্দুল মান্নান মিয়ার ভাড়া বাসায় পরিবার নিয়ে থাকতো।তাদের উভয়ের বাড়ী নেত্রকোনার খালিয়াজুড়ি থানার জগন্নাথপুর ইউনিয়নে। তারা প্রতি দিনের ন‍্যায় গত০৫/১০/২২ইং বুধবার সকালে পোশাক কারখানায় কাজে যায় সারাদিনের কাজ শেষে ওইদিনই তাদের কারখানায় মাসিক বেতন দেয়।বেতন নিয়ে রাত নয়টার সময় বের হয়ে বাসায় রওনা দেন। প্রত‍্যক্ষদর্শীরা জানান, আগে থেকে ওত পেতে থাকা একই কারখানার শ্রমিক সহাজিদ আলম,পিতা-আবদুল খালেক, মো. বিপ্লব হোসেন,পিতা-নবিবুর রহমান নবাব, মো.নূর নবী, পিতা-বাচ্চু মিয়া।তাদের সকলের জেলা কুড়িগ্রাম,উপজেলা নাগেশ্বরী। রয়তুন ও টুনি আকতারকে অতর্কিত ভাবে মুখে রুমাল চেপে ধরে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে চলে যায়।লোকমুখে খবর পেয়ে তাদের পরিবারের লোকজন অনেক খোজাখুজি করেও কোন সন্ধান করতে পারেনি।রয়তুন ও টুনির মা নাছিমা বেগম ও মিনা বেগম বলেন আমরা অভাবের তাড়নায় এই বয়সের মেয়েদেরকে পোশাক কারখানায় কাজে দিতে বাধ্য হয়েছি।টুনির বাবা একজন রিক্সাচালক ও রয়তুনের বাবা একজন দিনমজুর। ঔতিন বখাটে ছেলেরা আমাদের মেয়েদেরকে আগে থেকেই ডিসটার্ব করতো আমরা কেউ বুঝতে পারিনি যে আমাদের মেয়েদের এতবড় সর্বনাশ হয়ে যাবে। আমরা আমাদের মেয়েদেরকে ফিরে চাই।
এবিষয়ে সাভার মডেল থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরী করেন রয়তুন ও টুনি আক্তারের পরিবার। এব‍্যাপারে বিরুলিয়া পুলিশ ক‍্যাম্পের ইনচার্জ এসআই দিদারুল ইসলাম বলেনঃ আমাদের ভিকটিমকদের উদ্ধার ও আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব‍্যহত আছে।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ