এম আর সজিব, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:
সুনামগঞ্জ সদর থানার লক্ষণশ্রী ইউনিয়নের রাবার বাড়ীতে প্রতিপক্ষের হামলায় ৫ জন আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
গত ২২ ডিসেম্বর শুক্রবার রাবার বাড়ী গ্রামের আক্তার হোসেনের বসত বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।
জানা যায় শাহাব উদ্দিন (২৮)পিতা জয়নাল উদ্দিন,আনোওয়ার (৩৫)পিতা আপ্তা মিয়া,পারভিন বেগম(৪০)স্বামী বুলবুল,নাছিমা বেগম(৩২)স্বামী আনওয়ার,রুনা বেগম(২৫)স্বামী শাহাব উদ্দিন ,সর্বসাং রাবার বাড়ী , এদের সবার স্বামী স্ত্রী উগ্র,দাঙ্গা বাজ মাদক ব্যবসায়ী, সকলে একত্রিত হয়ে হামলার ঘটনা ঘটিয়েছেবলে জানান আহত পরিবারের সদস্যরা।

২২/১২/২৩ ইং বিকাল ৩ টা ৩০ মিনিটে সদর উপজেলার রাবারবাড়ী গ্রামের অভিযোগ কারীর বসত ঘরে লাঠিসোটা,দেশীও অস্ত্র নিয়ে নিজ বাড়িতে প্রাণে মারার জন্য আক্রমণ করে ঐ সমস্ত সন্ত্রাসীরা।

গুরুতর আহতরা হলেন,গাড়ী চালক আক্তার হোসেন (২৭)পিতা জফর আলী, হোসেন,গৃহিনী ইপা বেগম(২৫)স্বামী তাহের মিয়া,মমজান বিবি(৭০)স্বামী সবুর মিয়া,রিতা বেগম(৩৫)স্বামী ফারুক মিয়া,আনোয়ার আলী (৬০)পিতা মৃত আহমদ আলী,কবির মিয়া(৩০)পিতা আঃকরীম, সর্বসাং রাবার বাড়ী , ইউ/পি লক্ষণশ্রী।

গুরুত্ব আহত আক্তার হোসেন ও গৃহিনী ইপা বেগম সহ কয়েকজন কে জেলা সদর হাসপাতালের সার্জারী বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা (অভিযোগ)দায়েরে করা হয়েছে।

আহত আক্তার হোসেন,ইপা গংরা বলেন, ঘটনার দিনে আমি ও প্রতিদিনের মত নিজ গৃহে কাজ কামে ব্যাস্ত থাকায় প্রতিপক্ষরা পূর্ব বিরুদ্ধের জের ধরে শাহাব উদ্দিন (২৮)পিতা জয়নাল উদ্দিন,আনোওয়ার (৩৫)পিতা আপ্তা মিয়া,পারভিন বেগম(৪০)স্বামী বুলবুল,নাছিমা বেগম(৩২)স্বামী আনওয়ার,রুনা বেগম(২৫)স্বামী শাহাব উদ্দিন, গংরা ধারালো অস্ত্র, রট, ইট,দিয়ে কুপিয়ে হত্যার জন্য আমাদের নিজ গৃহে আসিয়া ঘড়ের দরজায় কুপ দিয়ে ডাকা ডাকি করে আমরা দরজা খুলে দেখি সবাই সামনে।প্রতিবাদ করলে আমাদের কে আহত করে। আমাদের সুর-চিৎকারে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রতিপক্ষের কবল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। বর্তমানে আমরা হাসপাতালে ভর্তি থেকে প্রতিপক্ষ গংদের ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগিতেছি।

এ ব্যপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃখালেদ চৌধুরী এর কাছ থেকে জানতে চাইলে জানান আমি প্রোগ্রামে আছি দেখে জানাব, পরে কল দিলে ফোন রিছিব হয়নি।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ