মোছাঃ শারমিন আক্তার বগুড়া জেলা প্রতিনিধিঃ
বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার শান্তাহারে নোমান ট্রাভেল এজেন্সিতে হামলা ও লুটপাটের পর জোর করে বন্ধ রাখার অভিযোগ মাবাবা ষ্টেশনারী দোকানের মালিক নয়ন হোসেন ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে।
সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায় শনিবার সকাল সাড়ে নয়টার মেরাজুল ইসলাম তার প্রতিষ্টান নোমান ট্রাভেল এজেন্সি খুলতে গেলে পাশের মা-বাবা ষ্টেশনারী দোকানের মালিক নয়ন হোসেন ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র দেখিয়ে মেরাজুল ইসলাম তার প্রতিষ্টান নোমান ট্রাভেল এজেন্সি বন্ধ করে দেয়।
এবং তার কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে।
এই বিষয়ে মেরাজুল ইসলাম বাদি হয়ে শান্তার রেলওয়ে থানায় একটি অভিযোগ করেন,
অভিযোগ সুত্রে জানায়ায়, সান্তাহার ষ্টেশন রোডে অবস্থিত নয়ন হোসেন এর মা-বাবা ষ্টেশনারী দোকান ও মেরাজুল ইসলামের নোমান ট্রাভেল এজেন্সি পাশাপাশি হওয়ায় দির্ঘদিনের শত্রুতার জের ধরে তাকে বিভিন্নভাবে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ প্রাণনাশের হুমকি দিত।
শত্রুতার জেরে গত (২৯ নভেম্বর) মঙ্গলবার সকাল ১১টায় শান্তাহারে মেরাজুল ইসলামের নোমান ট্রাভেল এজেন্সিতে মা-বাবা ষ্টেশনারী দোকানের মালিক নয়ন হোসেন ও তার সহযোগী নিহাল আহমেদ প্রান্ত (২৭), রাকিবুল হাসান রাকিব (৩২), নাইম হোসেন (২৭) বুলবুল আহমেদ (৩৪) সহ অজ্ঞাতনামা আরও বেশ কয়েকজন অবৈধভাবে অফিসে প্রবেশ করে হুমকিধামকি প্রদান সহ ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে।
মেরাজুল ইসলাম চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে অফিস ভাংচুর সহ মারপিট করে।
অফিসের সামনে লাগানো সাইনবোর্ড ভেঙে ফেলে রাস্তার পাশে ফেলে দেয়।
চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এসে মেরাজুল ইসলামকে আহত অবস্থায় জরুরি চিকিৎসার জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়।
শান্তার রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাকিউল আযম এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,
অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ