শুক্রবার, ২৯ জুলাই, ২০২২

রাজশাহী থেকে পাচার ও যৌন কার্যকলাপের জন্য নিয়ে যাওয়া চার স্কুলছাত্রীকে ঢাকা সাভার থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এসময় পাচারকারী চাঁদনী বেগম নামের এক নারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
উদ্ধারকৃত চার স্কুলছাত্রীর মধ্যে একজন পঞ্চম, দুজন সপ্তম ও একজন অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী বলে জানা গেছে।
স্কুলছাত্রীদের সবার বাড়ি নগরীর টুলটুলিপাড়ায়। তারা নগরীর মহিষবাথান আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।
উদ্ধারের পর শুক্রবার সকালে তাদের প্রথমে রাজপাড়া থানায় আনা হয়। পরে স্কুলছাত্রীদের আরএমপির ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।
এছাড়াও গ্রেপ্তারকৃত নারী রাজশাহী মহানগরীর রাজপাড়া থানার কোর্ট বুলনপুরের সুরুজ আলীর স্ত্রী চাঁদনী বেগম (৩০) সে নগরীর মহিষবাথান এলাকার বাসিন্দা।
ঘটনা সূত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) সকালে ৪ স্কুলছাত্রী স্কুলে যাওয়ার কথা বলে বাড়ী থেকে বের হয়।

বিকেলে গড়িয়েও তারা বাড়ী ফিরে না আসলে তাদের অভিভাবকরা খোঁজ খবর নেওয়া শুরু করে। এর এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন তাদের জানায়, চাঁদনী নামের এক নারীসহ ওই চার স্কলছাত্রী নগরীর মহিষবাথান কলোনীর উত্তর পার্শ্বে গেট দিয়ে যেতে দেখেছে।
পরবর্তীতে চাঁদনীর স্বামীর কাছে গিয়ে জানতে পারে চাঁদনী কাউকে না জানিয়ে প্রায় সময় ঢাকায় যায় এবং ১০/১২ দিন পর আবার ফিরে আসে।

চাঁদনীর মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এসময় স্কুলছাত্রীদের অভিভাবকদের ধারণা আসামি চাঁদনীসহ তার সহযোগিরা তাদের পাচার এবং যৌন কার্যকলাপের জন্য নিয়ে গেছে।
এক কিশোরীর পিতার এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রাজপাড়া থানায় একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়।
রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানার একটি টিম বৃহস্পতিবার (২৮জুলাই) দিবাগত রাত সোয়া ১ টার দিকে তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় অভিযান পরিচালনা করে, ঢাকার সাভার পূর্ব রাজাসন এলাকা থেকে আসামি চাঁদনীকে গ্রেপ্তার করে,-
এছাড়াও তার হেফাজত থেকে ৪ স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানান, জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃত আসামি চাঁদনী বেগম যৌন কার্যকলাপের জন্য স্কুল শিক্ষার্থীদের পাচারের কথা স্বীকার করছে।
এছাড়াও আসামির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ