মানিক হোসেন, রাজশাহী প্রতিনিধি :

১৯৯৯ সালের ২ জানুয়ারি রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে খোরশেদা খাতুন নামের এক নারীকে গলা কেটে হত্যার ঘটনা ঘটে। এই অপরাধে জড়িত আসামী রকিবর রহমান ওরফে ওকিবর নামের এক আসামীর মৃত্যু বুধবার (৩০ নভেম্বর) দিবাগত রাত ১০টা ১ মিনিটে কার্যকর করা হয়েছে বলে রাজশাহী কারাগার সূত্রে জানা গেছে।

ওই আসামী গোদাগাড়ী উপজেলার নিমতলা গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার আব্দুল জলিল জানান, ১৯৯৯ সালের ২ জানুয়ারি রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে খোরশেদা খাতুন নামের এক নারীকে গলা কেটে হত্যার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় খোরশেদার বাবা আব্দুল জব্বার সাত জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন গোদাগাড়ী থানায়। এ মামলায় শুনানি শেষে রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইবুনাল আদালত ২০০৪ সালের ৮ আগস্ট চার আসামীর মৃত্যুদণ্ড প্রদান করেন। তারা হলো, হেলাল উদ্দিন, রকিবর রহমান, লাল মোহাম্মদ ও বাছির উদ্দিন।

এই অপরাধে জড়িত আসামী রকিবর রহমান ওরফে ওকিবরের ফাঁসি কার্যকর করার নির্দেশ আসে। এরপর তার প্রাণভিক্ষার আবেদন রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নাকচ হলে বুধবার দিবাগত রাতে ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

ফাঁসি কার্যকরের পর লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ