মাদারীপুর সদর উপজেলার রাস্তি ইউনিয়নের পশ্চিম রাস্তি গ্রামে পূর্ব শত্রুতাকে কেন্দ্র করে রনি হাওলাদার (২৭) ও নুর জামানসহ (৯) বেশ কয়েকজনে আহত করার অভিযোগ উঠেছে দেলোয়ার মাতুব্বর ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে। হামলার এ ঘটনায় ১৩ জনকে আসামি করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী পরিবার।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, তারা এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে দাঙ্গাহাঙ্গা, নেশা, চাঁদাবাজি এবং মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। এসকল বিষয়ে বাধার কারনে বসতবাড়ি ভাঙ্গচুরসহ নানা বিষয়ে ক্ষয়ক্ষতি সাধন করার জন্য বিভিন্নভাবে পাঁয়তারা করে চলছে। এবং রাস্তাঘাটে একা পেয়ে মারধর করে নির্মম অত্যাচার ও নির্যাতন করতেছে।

স্হানীয় সাগর হাওলাদার বলেন,আমরা দেলোয়ার মাতুব্বর এবং তার লোকজন ভয়ে এলাকায় থাকতে পারি না। তিনি নেশা বিক্রি করে এবং বিভিন্ন সন্ত্রাস বাহিনী দিয়ে মানুষকে নির্মমভাবে অত্যাচার করে। যদি কেউ তাকে মাদক বিক্রি করা থেকে বাধা দিতে গেলে তাকে একা পেয়ে মারধর করে। এজন্য তার ভয়ে কেউ এলাকায় মুখ খুলছে না। আমরা প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু বিচার চাই।

তানিয়া বেগম বলেন, দেলোয়ার মাতুব্বরের সন্ত্রাসবাহিনী মিলন মাতুব্বরকে দিয়ে এলাকার বিভিন্ন ঘরে ঘরে লুটপাট করায়। এবং ঘরের ভিতরে মাদক রেখে মামলা দেওয়ার ভয় দেখায়।আমাদের ছেলে সন্তানকে একা পেয়ে মারধর করে। এখন এলাকাবাসী দেলোয়ার ও তার সন্ত্রাসী যন্ত্রণায় আমরা এলাকায় থাকতে পারতেছি না। সরকারের কাছে আমি সুষ্ঠু বিচার চাই।

ভুক্তভোগী রনি হাওলাদার বলেন,আমি দেলোয়ারের মাদক বিক্রি করা থেকে বাধা দিলে তিনি আমাকে বিসিক এলাকায় একা পেয়ে হাতুড়ি, লোহার রড, লাঠি সোটা ও হকিস্টিক দিয়ে এলোপাতাড়ি ভাবে পিটিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থান মারাত্মক জখম করেছে।প্রশাসনের কাছে একটাই দাবি সন্ত্রাসীবাহিনীর থেকে যেন আমরা এলাকাবাসী মুক্তি পেতে পারি।

এ ব্যাপারে মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ওয়াসিম ফিরোজ বলেন,ভুক্তভোগী পরিবার থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ