মোঃ শহিদুল ইসলাম খান সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:
সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে ইফতারের সময় মেয়াদোত্তীর্ণ বেজাল স্যালাইন পান করে জিম খাতুন নামে ৩ বছর বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এতে আরও অসুস্থ হয়ে নিহত শিশুর মা সহ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে ৪ জন। এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দোকানদার ও সেলসম্যান স্যালাইনের মালিক সহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন ১। কদমতলী গ্রামের মুল্লুক চানের ছেলে আমিরুল ইসলাম ওরফে নূরু ২। বৈলগাছি উত্তর পাড়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে মোঃ সাগর ৩। সমেশপুর হাটপাড়া গ্রামের মৃত আকবর প্রামানিকের ছেলে হাফিজুল প্রামানিক ৪। স্যালাইন কারখানার মালিক কলাগাছি গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে আনিসুর রহমান ওরফে আবু সামা।
সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে বেলকুচি উপজেলার বৈলগাছি গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার সন্ধ্যায় শবে বরাতের নফল রোজা রেখে ইফতারিতে ওরস্যালাইন ও ইস্পি ট্যাঙয়ের মিশ্রণ গুলিয়ে পান করেন পারভিন খাতুন। এ সময় তার তিন সন্তান জিম, রিয়া ও মিথিলা ভাগ্নিসহ ওরস্যালাইন এবং ইস্পি ট্যাঙয়ের মিশ্রণের পানি পান করেন। ইফতার শেষে পারভিন ও তার তিন শিশু সন্তান ও ভাগ্নি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে পরিবারের লোকজন ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।
বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসক ডা. ফয়সাল হোসেন জানান, অসুস্থ অবস্থায় প্রথমে বেলকুচি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাদের সিরাজগঞ্জে প্রেরণ করেন। এখানে আসার পর জিম খাতুন নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য অসুস্থ অপর ৪ জনকে বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
বেলকুচি থানার তদন্ত ওসি আব্দুল বারিক জানান, শবে বরাদের নফল রোযা রেখে ইফতারের সময় শিশু সন্তানদের সাথে নিয়ে স্যালাইন দিয়ে ইফতার করে নামাযে দাড়ায় পারভীন খাতুন আর তখনই সবাই অসুস্থ হয়ে পরে। পরে স্যালাইন বিক্রেতা ডিলার ও স্যালাইন প্রস্তুত কারক মালিক সহ ৪ জনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য সিরাজগঞ্জ মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত জিম খাতুন উপজেলার বৈলগাছি গ্রামের কায়েম উদ্দিনের মেয়ে। অসুস্থরা হলেন— নিহতের মা পারভিন খাতুন, বোন রিয়া ও ভাগ্নি মিথিলা।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ