বান্দরবান প্রতিনিধি:
বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার ক্যাপলং পাড়ায় কাঠ ব্যবসার পাওনা টাকা সংগ্রহের জন্য গেলে অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীরা মোঃ রফিক(৪২) নামে এক ব্যবসায়ীকে অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
ভুক্তভোগী মোঃ রফিক(৪২) বান্দরবান পৌরসভার ০১নম্বর ওয়ার্ড বালাঘাটা বাসিন্দা মৃত হামিদ হোসেনের ছেলে।
মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১২টার সময় ১নং রোয়াংছড়ি সদর ইউপির ৬নং ওয়ার্ডের ক্যাপলং পাড়ায় এঘটনা ঘটে।
ভুক্তভোগী রফিক জানান, জনৈক ব্যাং বাবা নামে এক ব্যক্তির নিকট গেলে তিনি জুম চাষের জন্য পাহাড়ে অবস্থান করায় তাহাকে ঘরে না পেয়ে পূর্ব পরিচিত ফিলিপের ঘরে দুপুরের খাবার খেয়ে পাওনা টাকার জন্য অপেক্ষা করার সময় ওয়াকিটকিসহ অজ্ঞাতনামা অস্ত্রধারী চারজন লোক এসে কুকিচিন পরিচয় দিয়ে জিজ্ঞেস করেন যে, তোমার নাম কি রফিক? পরিচয় নিশ্চিত হয়ে তারা বলেন, আপনাকে তো আমরা খুঁজতেছি।
পরে পাড়া থেকে আনুমানিক ১কিঃ মিঃ পাহাড়ী ঝিড়ির ভিতরে নিয়ে যায় এবং তার নিকট ১,০০,০০০(এক লক্ষ) টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানাইলে তাহারা বেদম মারধর করে। তাদের দাবিকৃত চাঁদা না দিলে আমাকে প্রাণে মারার হুমকি দেয়। তিনি নিরুপায় হয়ে তার স্ত্রীর মোবাইল নম্বর দিলে তাহাদের ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বার থেকে তার স্ত্রীর মোবাইল নাম্বারে ফোন করে উক্ত ঘটনার বিষয় জানিয়ে বলে তোমার স্বামীকে বাঁচাতে চাইলে দ্রুত এই নাম্বারে ১,০০,০০০/-(এক লক্ষ)টাকা দিতে বলে। তার স্ত্রী নিরুপায় হয়ে বিকাশ নম্বরে ৩০,০০০/-(ত্রিশ হাজার) টাকা পাঠায়। টাকা পাওয়ার পর তাহারা রফিককে ওই পাহাড়ী এলাকায় আগামী ০১ বছর অবাধে ব্যবসা করার জন্য ছেড়ে দেয়।
পরে সেনাবাহিনী উদ্ধার করে তাকে রোয়াংছড়ি সেনা ক্যাম্পে নিয়ে আসে। সেনাবাহিনীকে বিস্তারিত অবহিত করলে তাকে রোয়াংছড়ি থানায় অভিযোগ করার পরামর্শ দেয় বলে জানান তিনি।
এবিষয় ভুক্তভোগী বুধবার রোয়াংছড়ি থানায় চারজনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানান তিনি।
রোয়াংছড়ি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো: নঈম উদ্দিন বলেন, ভুক্তভোগী মোঃ রফিক এবিষয়ে রোয়াংছড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ