সটাফ রিপোর্টারঃ মোঃ রুবেল হোসাইন তুহিন তালুকদার। বগুড়ায় ডাস্টবিন থেকে কুড়িয়ে পাওয়া নবজাতকটি ফিরে পেল মা-বাবাকে বগুড়ায় উদ্ধার হওয়া নবজাতকটি মায়ের বুকে ফিরে গেছে। তার বাবার পরিচয়ও মিলেছে। গত ১৪ জুলাই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জলেশ্বরীতলার পৌরসভা লেনে ডাস্টবিন থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। সেখানে এক গণমাধ্যমকর্মী তার বাসার দরজা খুলে ওই কন্যা নবজাতকের কান্না শুনতে পান। পরে তিনি থানায় খবর দিলে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। উদ্ধারের সময় শিশুটির আনুমানিক বয়স ছিল ৭মাস। সদ্য অন্যত্র বদলি হওয়া বগুড়া সদর ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর তাজলিমুর রহমান শিশুটিকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ক্লিনিকে নিয়ে যান। তিনি জানান, শিশুটি মা-বাবার পরিচয় পাওয়া গেছে। তাদের বাড়ি জলেশ্বরীতলা এলাকাতেই। তবে সম্মান রক্ষার্থে তাদের পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, নবজাতকটি এক প্রেমিক জুটির। বিয়ের আগেই প্রেমিকা বাচ্চাটি প্রসব করেন। তবে দুই পরিবারের দ্বন্ধের কারনে বাচ্চাটি কেউ মেনে নিচ্ছিল না। বাচ্চাটির বাবাও অস্বীকার করে যাচ্ছিল। এই পরিস্থিতিতে কোন উপায় না দেখে মা নবজাতকটিকে ওই ডাস্টবিনের মধ্যে ফেলে রেখে যান। একটি সাদা শপিং ব্যাগে শাড়ি দিয়ে মুড়ে রাখা হয়েছিল বাচ্চাটিকে। সঙ্গে শিশুটির খাবার হিসাবে দুধসহ একটি ফিডার দেয়া হয়েছিল। মা’র উদ্দেশ্য ছিল বাচ্চাটি বেঁচে থাকুক আর কেউ কুড়িয়ে পেয়ে নিয়ে যাক। এ অবস্থায় খবর পেয়ে নবজাতকটিকে উদ্ধার করে পুলিশ। একইসাথে বাচ্চাটি মা-বাবা কে, তা জানতে অনুসন্ধান শুরু করে পুলিশ। এক পর্যায়ে বাচ্চাটির মা-বাবাকেও খুঁজে পায় পুলিশ। পরে মা’র কাছে ফিরিয়ে দেয়া হয় বাচ্চাটি। বাচ্চাটি পাওয়ার পর বিয়ে বন্ধনেও আবদ্ধ হন নবজাতকটির মা-বাবা। দুই পরিবার তাদের বিয়ে মেনে নিয়েছেন। স্বীকৃতিও দিয়েছেন বাচ্চাটিকে। এখন ওই নবজাতকসহ ভাল আছেন ওই প্রেমিক যুগল।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ