পঞ্চগড়ে আইনজীবী কর্তৃক শ্রমিক নেতাকে লাঞ্চিতের ঘটনায় সড়ক অবরোধ করে শ্রমিকরা। রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকালে আদালত চত্তরে শ্রমিক নেতা লাঞ্চিতের ঘটনায় দুপুর একটায় সড়ক অবরোধ ও আইনজীবী সমিতি ঘেরাও করে শ্রমিকরা। বন্ধ হয়ে গেছে পঞ্চগড় থেকে সব রুটের বাস ও পন্য বাহী ট্রাক চলাচল। এতে চরম দূর্ভোগে পড়েন পথচারীরা।
জানা যায়, জুয়া খেলার অপরাধে কয়েকজন আটক শ্রমিকের জামিনের জন্য আদালতে এ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ লিটনের কাছে মটর পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়ন ২৬৪ এর সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী যায়। এক পর্যায়ে তাদের মাঝে বাক বিতন্ডা শুরু হয়। এতে আইনজীবি আবুল কালাম আজাদ লিটন শ্রমিক নেতা আকবর আলীকে লাঞ্চিত করে। পরে তাৎক্ষনিকভাবে বিষয়টি শ্রমিকদের মাঝে ছড়িয়ে পড়লে আদালতের মূল ফটক ও পঞ্চগড় জেলা শহরে প্রবেশের সড়কগুলো বন্ধ করে শ্রমিকসহ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এসময় শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে আদালত চত্তরের আইনজীবীর সমিতি ও সেরেস্তা লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে আইনজীবী সমিতি ও শ্রমিক সংগঠনের যৌথ আলোচনায় প্রায় তিন ঘন্টা পর বিকাল ৪ টায় অবরোধ প্রত্যাহার করে।
অভিযুক্ত আইনজীবী আবুল কালাম আজাদ লিটন জানান, গতকাল রাতে জুয়া খেলার অপরাধে ট্রাক টার্মিনাল এলাকা থেকে সাতজনকে আটক করে পুলিশ। সেখানে আমার একজন আত্মীয় ছিল। আমি তার জন্য আদালতে জামিনের আবেদন করি কিন্তু শ্রমিক নেতা আমাকে জামিন করতে দিবেনা। এনিয়ে দুপক্ষের হাতাহাতি হয়।
পঞ্চগড়ে আসা তেঁতুলিয়া উপজেলার কয়েকজন যাত্রী সাথে কথা হলে তারা বলেন,শ্রমিক-আইনজীবীর দ্বন্দে আমরা সাধারণ মানুষ হয়রানিতে পড়েছি। দুই তিন ঘন্টা ধরে অপেক্ষা করেছি বাস চলাচল বন্ধ।
শ্রমিক সংগঠনের সহ-সভাপতি নুরুজ্জামান জানান, আইনজীবীর সাথে শ্রমিক নেতা লাঞ্চিতের ঘটনায়, ওই আইনজীবী ক্ষমা চেয়েছেন। পরে আমরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেই।
পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ মিঞা জানান,দুই পক্ষে বসে বিষয়টিকে সমাধান করে। পরে সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।
পঞ্চগড় সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম জানান,আইনজীবি সমিতির নেতা,জেলা জর্জ কোটের পিপি,শ্রমিক নেতারাসহ আলোচনা করে বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ