স্বপন কুমার রায়, খুলনা ব্যুরো প্রধান:
খুলনায় জোড়্ হত্যার মামলার প্রধান আসামীসহ ৩
জনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৬।র‍্যাব -৬ সদর কোম্পানি খুলনা ব্যাটালিয়ের একটি চৌকস অভিযানিক দল সোমবার (২৫ মার্চ ২০২৪) রাত ১টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাগের হাট জেলার মোংলা থানার মোংলা ফেরিঘাট এলাকায়
অভিযান পরিচালনা করে চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার
আসামী অংশুমান মন্ডল (৬০) শাওন মন্ডল(২৫) ও
পিজুস কান্তি হালদার (৫৮) কে গ্রেফতার করে।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামীরা হত্যার সাথে জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করে। গ্রেফতারকৃত আসামীদেরকে খুলনা জেলার দাকোপ থানায় হস্তান্তর এর কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন বলে জানা গেছে।
জানা গেছে, বিবাদী অংশুমান মন্ডল এর আবাদী ক্ষেতের পাশ্বে বসবাসরত অশোক গাইনের বাসার গৃহপালিত গরু—ছাগল, হাঁস—মুরগী উক্ত আসামীর ক্ষেতে মাঝে মধ্যে প্রবেশ করলে তাহাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এরই প্রেক্ষিতে ১ নং আসামী কর্তৃক অশোক গাইন গত ১৯ মার্চ ২০২৪ তারিখ বিবাদীরা আবাদী ক্ষেতের পাশে পুর্বের শত্রুতার জের ধরে পূর্ব—পরিকল্পনা মোতাবেক হত্যার উদ্দেশ্যে আবাদি ক্ষেতে রাতের অন্ধকারে বৈদ্যুতিক সংযোগ দিয়ে রাখে। একই তারিখ আনুমানিক ১১.৩০ ঘটিকার সময় চপলা গাইন(৬৫) এবং টুম্পা গাইন(৪০) উক্ত আবাদী ক্ষেতের পাশ দিয়ে দৈনন্দিন কাজে যাওয়ার সময় আসামীরা পূর্ব—পরিকল্পনা মোতাবেক বৈদ্যুতিক সংযোগ দিয়ে রাখলে বৈদ্যতিক তারে পেচিয়ে হত্যাকান্ড ঘটায়। একই তারিখ ১২.৩০ ঘটিকার সময় ভিকটিমদ্বয়কে ময়না তদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। পরবর্তীতে চপলা গাইন এর ছেলে বাদী হয়ে দাকোপ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এমন নির্মম হত্যাকান্ড বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়াসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত হয় এবং জনমনে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টিকারী ঘটনাটি জানতে পেরে র‌্যাব—৬ (সদর কোম্পানি) খুলনার একটি আভিযানিক দল ছায়াতদন্ত শুরু করে এবং চাঞ্চল্যকর হত্যার সাথে জড়িত আসামীদেরকে গ্রেফতারের লক্ষ্যে অভিযান অব্যাহত রাখে।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ