-শুক্রবার ২৯ জুলাই, ২০২২
আহসান হাবিব স্টাফ রিপোর্টারঃ
গাজীপুরের কালিয়াকৈরে রাতের আধারে ৩ গ্রামের ৯ বাড়িতে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।
আগুনে পুড়ে গেছে গবাদিপশুসহ বাড়ির আসবাবপত্র ।
এঘটনায় এলাকা জুড়ে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে ।
সুষ্ঠু তদন্ত ও অপরাধীদের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন, স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন ।

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার ভান্নারা পশ্চিমপাড়া গ্রামের কুলছুম ও রবিউল দম্পত্তি হাঁস-মুরগী ও ছাগল পালন করে জীবিকানির্বাহ করতেন ।
প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার রাতে ঘরের মধ্যেহাস-মুরগী ও ছাগল বেঁধে পাশের ঘরে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন ।
মধ্যরাতে হঠাৎ ছাগলগুলোর চিৎকারে ঘুম ভেঙ্গ যায় ওই দম্পতির । ঘর থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করেই বাহির থেকে ঘরের দরজাআটকানো দেখতে পান । জালানা দিয়ে দেখতে পান পাশের ঘরেদাও দাও করে জ্বলছে আগুন ।
পরিবারের সকলের চিৎকারেরপ্রতিবেশীরা এসে দরজা খুলে দেন এবং পাশের ঘরে আগুন নেভানোর চেষ্টা ।

ততক্ষণে ঘরসহ সকল আসবাবপত্র, ৫টি ছাগল ও ৮ মন, ধান পুড়ে ছাই হয়ে যায় ।

ক্ষতিগ্রস্ত ভান্নারা পশ্চিমপাড়া গ্রামের কুলসুম বেগম জানান, রাতেহঠাৎ ছাগলের চিৎকার শুনে ঘর থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করে বাহির থেকে দরজা আটকানো দেখে আতঙ্কিত হয়ে যান পরিবারের সকলেই।

বাড়ি থেকে পাশের ঘরে আগুন থেকে জীবন বাছানোর জন্যচিৎকার শুরু করলে পাশের বাড়ি স্বজন এগিয়ে এসে দরজা খুলে দেন। প্রতিবেশীর সকলেই আগুন নেভানোর চেষ্টা করতে থাকে ।
আগুন নেভাতে নেভাতে ওই ঘরে থাকা ৫ টি ছাগল, ১৫ /১৬টি মুরগী ও ৮ মন ধানসহ সকল আসবাবপত্র পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
দুটি ছাগলের শরীরের বিভিন্ন অংশ জ্বলশে গেলেও এখনও জীবিত রয়েছে ।
কুলসুমের স্বামী রবিউল ইসলাম জানান, ঘরের দরজা বাহির থেকে আটকানো দেখে সকলেই আতঙ্কিত হয়ে যান তারা । তাদের কোন শত্রু না থাকলেও অবস্থা দেখে গ্রামের প্রত্যেকেই ভয়ে আছেন ।
শুধু ওই বাড়িতেই নয়, এক বাড়ির আগুন নিভাতেই অন্য বাড়িতেও আগুন দেখতে পান প্রতিবেশীরা ।
এভাবে একই সময়ে পাশাপাশি ভান্নারা, ধোপাচালা ও রাখালিয়া চালা গ্রামের ৯ বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা ।

এঘটনায় ওই তিন গ্রামের মানুষের মধ্যে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে ।

ধোপাচালা গ্রামের আয়নাল হকের বাড়িতে গিয়েও দেখা যায়, তারএকটি মিনি গার্মেন্টসের
মালামাল রাখার ঘরের মধ্যে আগুনে পুড়ে গেছে বেশ কিছু ফেব্রিক্স ও এক্সোসরিজ ।

এছাড়া ওই বাড়ীতে একটি পোল্ট্রি খামারেও আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা ।
এসময় ওইখামারে বিভিন্ন অংশ পুড়ে গেলেও স্থানীয়রা আগুন নেভালে মুরগীগুলো প্রাণে বেঁচে যায় ।
এঘটনার সুষ্টু তদন্তসহ আপরাধীদের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবী করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত আয়নাল হক ।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ক্ষতিগ্রস্তদের বাড়ি পরিদর্শন করেছেন । এসময় নাশকতা মুলক কাজের সাথে জড়িত অপরাধীর দুষ্টান্তমুলক শাস্তিরপাশাপাশি, ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার আশ্বাস দেন তারা ।

এসময় মৌচাক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন জানান, গত তিন/চার দিন আগেও উপজেলার মৌচাক ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে বামনবাগ এলাকায় একইভাবে ৩ বাড়িতে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটায় দুর্বৃত্তরা ।
কোন মাদকসেবী চক্র অথবা কোন নাশকতা কারী চক্র করছে কিনা তা প্রশাসনকে খতিয়ে দেখা সহ জড়িতদের বিরুদ্ধে দুষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী করেন তিনি ।
কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম আজাদ ঘটনা স্থল পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে যতদ্রুত সম্ভব আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে ।
পাশাপাশি নাশকতার সাথে যেই জড়িত থাকুব তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পুলিশকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ।
ইতোমধ্যে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বলেও জানান তিনি ।।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ