কালিয়াকৈর প্রতিনিধিঃ সোমবার গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার শ্রীফলতলী এলাকায় অনুমোদনহীন সন্দেশ তৈরীর কারখানায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়েছে। এ সময় কারখানার মালিক আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে গেলেও দুই শ্রমিককে আটক করা হয়। আটকতৃরা হলেন-টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর এলাকার মোঃ জহুর উদ্দিনের ছেলে হারুন মিয়া (৩৫) ও মানিকগঞ্জ জেলা দৌলতপুর উপজেলার নাটোয়াবাড়ী এলাকার ওবাইদুলের ছেলে লুৎফর মিয়া(৪৫)।
গতকাল কয়েকটি গণমাধ্যমে “অনুমোদনহীন কারখানায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে সন্দেশ তৈরি” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হলে কালিয়াকৈর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদের নেতৃত্বে উপজেলার শ্রীফলতলী এলাকায় অবস্থিত অপূর্ব ফুড প্রডাক্ট ও ভাই ভাই ফুড প্রডাক্টস নামে দুটি অনুমোদনহীন সন্দেশ তৈরীর কারখানায় ভ্রামামান আদালতের অভিযান পরিচালিত করা হয়।
এ সময় ভ্রাম্যমান আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে ভাই ভাই ফুড প্রডাক্টস কারখানার মালিক শুভরাজ ও অপূর্ব ফুড প্রডাক্টস এর মালিক শাহীন আলম পালিয়ে গেলেও দুই শ্রমিককে আটক করা হয় এবং মানহীন সন্দেশ তৈরীর বিপুল পরিমাণ উপকরণ বিনষ্ট করা হয়।
আটককৃত শ্রমিকরা জানান, বিভিন্ন মিষ্টির দোকান থেকে মিষ্টির তৈরীর পরিত্যক্ত গাদ কম দামে কিনে এনে ওই মিষ্টির গাদের সোটা, রং, সুজি ও আটা মিশিয়ে চুলাতে তাপ দেওয়া হয়। সেগুলো ষ্টেলের ছাচে ঢেলে কয়েকজন নারী-পুরুষ শ্রমিক দিয়ে ছোট ছোট খন্ড করে তৈরি করা হচ্ছে শিশু খাদ্য সন্দেশ। পরে প্লাস্টিকের বাটিতে সন্দেশ ভর্তি করে পণ্যের গায়ে ভূয়া মোড়ক লাগিয়ে বাজারজাত করা হয়। ওই মোড়কের গায়ে প্রস্তুতকারকের নাম থাকলেও বিএসটিআইয়ের কোনো অনুমোদন ও মেয়াদ উর্ত্তীণের তারিখ দেওয়া থাকেনা। পরে ঢাকা,গাজীপুরসহ ও আশপাশের এলাকাগুলোর বিভিন্ন হাট-বাজার ও গ্রামগঞ্জের বিভিন্ন দোকানে ওই সন্দেশগুলো বিক্রি করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ জানান, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরী করা অনুমোদনহীন সন্দেশ কারখানার মালিক পালিয়ে গেছে। দুই কর্মচারীকে আটক করে এক মাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ