আরিফুল ইসলাম, তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
আগামী জুলাই মাসের ১৭ তারিখে অনুষ্ঠিত হবে সিরাজগঞ্জ জেলায় তাড়াশ উপজেলার নব গঠিত পৌরসভার নির্বাচন। এ নির্বাচনে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে কর্মক্ষেত্রে অবদান রেখেছেন এমন একজন বিশিষ্ট নারী নেত্রী ও সমাজকর্মী কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। তার নাম রোখসানা খাতুন রুপা। সে তাড়াশ পৌর এলাকার আসানবাড়ী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক রাজুর মেয়ে।
এদিকে মাস্টার্স অব সোস্যাল সাইন্স (এমএসএস) ডিগ্রি অর্জনকারী একজন উচ্চ শিক্ষিত নারী নেত্রী ও সমাজকর্মীকে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হিসেবে পেয়ে উপজেলাবাসী আনন্দিত। বিশেষ করে, ভোটাররা তার প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, তাড়াশ পৌরসভার ১, ২ ও ৩ নাম্বার ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের মহিলা কাউন্সিলর পদে নিবার্চন করছেন রোখসানা খাতুন রুপা।
কাউন্সিলর প্রার্থী রোখসানা খাতুন রুপা বলেন, পারিবারিক সূত্রে সমাজকর্মে জড়িয়ে পড়েন তিনি। পরে সরকারি চাকরি করতে ইচ্ছে হয়নি। দুই যুগেরও অধিক সময় ধরে সুবিধাবঞ্চিত নারী, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, তৃতীয়লিংগের মানুষ, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সম্প্রদায় তথা প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কল্যাণে কাজ করছেন। দৃশ্যত তাড়াশে প্রতিবন্ধিতা প্রতিরোধ ও তাদের কর্মতৎপড়তার সূচনা তার উদ্যোগেই। এজন্য তিনি স্থানীয়ভাবে অনেক প্রতিবন্ধী মানুষের কাছে তাদের “ মা জননী ” হিসেবে সমাদৃত। প্রতিবন্ধিতায় কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ তিনি জাতীয় পদকও লাভ করেছেন।
রোখসানা খাতুন রুপা আরো বলেন, আমাদের প্রচলিত সমাজ ব্যবস্থায় বর্তমানে সৎ, সুশিক্ষিত ও নীতি-আদর্শবান নেতৃত্বের খুব দুর্ভিক্ষ চলছে। বিশেষ করে, জাতীয় থেকে তৃণমূল পর্যন্ত সবখানেই অবক্ষয়িত বিবর্ণ চিত্র আমাদের নিরুদ্যম ও হতাশ করে।
রোখসানা খাতুন রুপা সমাজকর্মের সুবাদে মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. শাহাবুদ্দিন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদ্রুত উইলিয়াম হান্না, আমেরিকার রাষ্ট্রদ্রুত মার্শা বার্নিকাটসহ অনেকের সুপরিচিত বলে জানা গেছে। এর আগে প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক তার হাতে বেগম রোকেয়া পদক তুলে দেন। একই সাথে ২০ হাজার টাকা দেন।
পৌর এলাকার ২ নাম্বার ওয়ার্ডের আসানবাড়ী গ্রামের ছাত্তার প্রামানিক (৫৫) বলেন, কাউন্সিলর প্রার্থী রোখসানা আগে থেকেই সমাজের মানুষের সমস্যা সমাধান ও উন্নয়নে কাজ করছেন। আমরা তাকেই ভোট দেব।
১ নাম্বার ওয়ার্ডের কহিত গ্রামের আব্দুল গফুর নামে একজন সাবেক সরকারি চাকুরেজীবী বলেন, মানুষের জীবনমানের উন্নয়নে সুশিক্ষিত, সৎ ও যোগ্য নেতৃত্বের বিকল্প নাই।
তাড়াশ ৩ নাম্বার ওয়ার্ডের তরুণ ভোটার সোহানুর রহমান সোহান, শহিদুল ইসলাম, মির্জা শুকুর ও পনো কুমার বলেন, কাউন্সিলর প্রার্থী রোখসানা আপার চেষ্টায় আমাদের পাড়া-মহল্লার অনেক মানুষের প্রতিবন্ধী ভাতা, বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা ও স্বামী নিগৃহীতা ভাতা কার্ড হয়েছে। এছাড়াও প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সহায়ক উপকরণ দিয়েছেন। প্রতিবন্ধী শিশুদের একীভূত শিক্ষায় অন্তর্ভূক্ত করেছেন। আমরা তরুণরা তাকেই ভোট দেব।
উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাঃ মুজিবুল আলম বলেন, অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ভোটাররা যাদের যোগ্য মনে করবেন তাদের ভোট দেবেন।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ